Atheist in Bangladesh

নবী মোহাম্মদের যতসব কু-কর্ম

মোহাম্মদ দাবী করছে জিবরাইল নামক এক তথাকথিত ফেরেশতা নাকি তাকে আল্লা নামের এক ব্যাক্তির ঐহী তার কাছে নিয়ে আসতো। এই হাস্যকর ফেরেশতা আর গায়েবী আল্লার কথা যুক্তি দিয়ে বা বিজ্ঞান দিয়ে সম্ভব নয়। যদিও এসব আজগুবি ব্যাপারগুলো কোরান নামের একটি হাস্যকর বই-ই লিপিবদ্ধ করা রয়েছে এবং বলা হচ্ছে আল্লা নাকি এসব পাঠিয়েছে।

কোরান গবেষনা করলে দেখা যায় যে এটা মুহম্মদের মনমত লিখিত তারই কথা-বার্তা। যেহেতু মুহম্মদ নিজে চরম ধরনের অশিক্ষিত ও নিরক্ষর ছিলো ফলে এই কড়ান সে নিজেও লিখতে পারেনি। লিখিয়েছে আবার তারই সহচর আবু বকর আর আলীকে দিয়ে।

সাইদুর রহমান নামের আমি এক ব্লগারের একটি লেখাকে কিছুটা কোট করি এখানে যেখানে তিনি বলেছেন-

“ইসলামীয় ইতিহাস মতে, ৬১০-৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে মুহাম্মদ নামক এক আরবীয়র নিকট একটি ঐশ্বরিক ধর্মগ্রন্থ কোরআন ওহী আকারে নাযিল হয়েছিল।

মুহাম্মদের হঠাৎ করে নবী হয়ে ওঠা এবং ইসলাম প্রচার করাটাকে ততকালীন মক্কাবাসীরা কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি (কোরান ৩৮:৮); তারা মুহাম্মদকে আল্লাহর প্রেরিত রাসুল নয় বলে তাকে প্রত্যাখ্যান করে (কোরান ১৩:৪৩) এবং পূর্বপুরুষদের মূর্তিপূজার ঐতিহ্য ছেড়ে ইসলামের মত একটা একেশ্বরবাদী ধর্ম পালনের আহ্বান শুনে মুহাম্মদকে একজন বিদ্রূপের পাত্র (কোরান ২১:৩৬) এবং পাগল বলেই সম্বোধন করতে থাকে (কোরান ১৫:৬); ওদের ভাষায় “আমরা কি এক উন্মাদ কবির কথায় আমাদের ইলাহগণকে বর্জন করিব?”(কোরান ৩৭:৩৬); এছাড়াও তাদের দাবি ছিল, অন্য ভাষার এক লোক (কোরান ১৬:১০৩) এবং জ্বীন সম্প্রদায়ের লোকেরা (কোরান ২৫:৪) তাকে কোরআনের শিক্ষা দিচ্ছে এবং কোরআনকে তারা মুহাম্মদের রচনা বলেই গণ্য করেছিল (কোরান ১০:১৫,৩৮; কোরান ১১:৩৫)”

আমার কথা হচ্ছে এই যায়গাতেই। মোহাম্মদের সময়ে সেই অঞ্চলে তো আরো ধর্ম প্রচলিত ছিলো এবং যদি মুসলমানদের কথা ধরি, তারাই বলে যে আল্লা নাকি ১০৪ টা আসমানী কিতাব নাজিল করেছে। যদি আসমানী কিতাব থাকে ১০৪টা তাহলে সেই ধর্মগুলোকে পরবর্তীতে মুছে দিতে আল্লা-ই একটার পর একটা নতুন কিতাব কেন পাঠিয়েছিলেন? তাহলে কি আল্লা নামের বস্তুটি নিজের পাঠানো কিতাব নিজেই দুইদিন পর আর বিশ্বাস করতে পারতেন না? তাহলে কি আল্লা নামের বস্তুটি মানসিক ভাবে অসুস্থ ছিলো?

এই ছাড়াও ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় ধর্ম প্রচারের নামে নবী মোহাম্মদ হাজার হাজার লোককে যুদ্ধের নামে খুন করেছে অত্যন্ত্য পাশবিকভাবে এবং যুদ্ধের পর অনেক ব্যাক্তির স্ত্রীকে জোর করে ধরে এনে তাদেরকে গনিমতের মাল আখ্যা দিয়ে ধর্ষন করেছে। সে হিসেবে নবী যে একটা ধর্ষক, এতে করে কি আর কারো সন্দেহ রয়েছে?

এই সত্য কথাগুলো লিখলেই অনেকে রেগে যান, ক্রোধে উন্মক্ত হন। কিন্তু এভাবে আর সত্য গোপন করে, সত্যের সামনে না দাঁড়িয়ে আর কতকাল? ইসলামিস্টরা যদি তাদের কোরান আর হাদীস ভালো করে নিজের ভাষায় পড়তো, তাহলে দেখতে পেতো এই কোরান ও হাদিস আসলে বলে সাম্প্রদায়িকতার কথা এবং খুন-খারাপীর কথা।

আমার আশ্চর্য লাগে, ইসলাম ধর্মের অনুসারীদের মধ্যে কি কোন যৌক্তিক লোক নেই যিনি যুক্তির মাধ্যমে নবীর এই খুন-খারাপী বা ধর্ষন নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন?

 

 

Print Friendly, PDF & Email

Muhaiminul Biswas Parvez

I am Muhaiminul Biswas Parvez. I don't believe in religion. On the other hand, I do believe the concept of god and religion was created by humans as among the other inventions which were made out of necessity.