Atheist in Bangladesh

মাদ্রাসা শিক্ষা বন্ধে একটা জোরালো আন্দোলন দরকার

মাদ্রাসা শিক্ষা বন্ধে একটা জোরালো আন্দোলন দরকার| রাজনৈতিক ব্যর্থতার সুযোগ নিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষা ও মাদ্রাসার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই|

মানুষের হাতে টাকা পয়সা বাড়ার সাথে সাথে দান খয়রাত বাড়ছে, আর এ দান খয়রাত গরিবদের উন্নয়নমূলক কাজে না লেগে চলে যাচ্ছে মসজিদ মাদ্রাসায়,
কারণ এতে সহজে জনপ্রিয়তা লাভ করা যায়| সাথে আছে মিডল ইস্টের আরব সাম্রাজ্য বিস্তারের অনুদান| সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের সব চেয়ে বড় বাধা এই মাদ্রাসা|

মাদ্রাসা শিক্ষার প্রতক্ষ্য ক্ষতিকর দিক ছাড়াও, পরোক্ষ্য অনেকগুলো ভয়ংকর দিক রয়েছে| ২০১৩ সালে সারা বাংলাদেশ থেকে টুকাইয়া, হুমকি দিয়ে, মিথ্যা তথ্য দিয়ে মতিঝিলে যত মাদ্রাসার শিক্ষাত্রীদের সমাগম করতে পেরেছিল, তার চেয়ে বেশি প্রগতিশীল ছেলেমেয়ে শুধু ঢাকা শহরেই আছে , যারা হেফাজতের দাবি গুলোর সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুতে বাস করে| কিন্তু প্রগতিশীল সেই সব মানুষকে কখনো এক জায়গায় সমবেত করতে পারা সহজ কাজ না| তাই সরকার মাদ্রাসাকে আজরাইলের মত ভয় পায়, আওয়ামী লীগ হেফাজতাংককে জলাতঙ্ক ভেবে তালিবানি শাসকের পথ বেছে নিচ্ছে|

এই মাদ্রাসা শক্তির মোহেই গোলাম মওলা রনি, আন্ধালিব, মাহী বা পিনাকীর মত সুসিল, মধ্যমন্থী ও ধান্ধাবাজরা চরমপন্থীদের সুরে কথা বলছে| আর সংখ্যায় অধিক হয়েও আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত লোকেরা কোন জোরালো অবস্থানে যেতে পারছেনা এবং তাদের দাবিকেও সরকার পাত্তা দিচ্ছে না| মাদ্রাসার এই অশুভ দিকটাকে গণতান্ত্রিক উপায়ে রুখার মত কার্যকরী কৌশল এখনো পর্যন্ত দুনিয়ার কোথাও নাই|

ক্যাথলিক স্কুলসহ অন্যান্য ধর্ম ভিত্তিক স্কুল গুলোর কেন্দ্রীয় নেতৃত্ত্ব থাকে যাদের হাতে, তাদের কাছে ভালো মন্দের জবাবদিহী চাওয়া যায়| যেমন ক্যাথলিক স্কুল গুলোর ব্যাপারে স্কুলের প্রিন্সিপ্যালসহ পোপ ও অন্যান্য ক্যাথলিক নেতৃবৃন্ধ বিশ্ব সমাজের মূল স্রোতের সাথে সরাসরি জড়িত, তাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় ক্রুটিগুলো নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করা যায়, কিন্তু মাদ্রাসা শিক্ষায় সংশোধনের এ ব্যবস্থাটা নেই, ফলে তারা অপ্রতিরোধ্য|

যদিও বাস্তবতা হলো মাদ্রাসার ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরতে ও মাদ্রাসা বন্ধে ভুমিকা রাখতে
মিডিয়াগুলোকে ( প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স ) পাশে পাওয়ার সম্ভাবনা শুন্য, সাথে পিনাকি ও আসিফ নজরুলদের মত হিপুক্রেটরা গোল বাধানোর চেষ্টা করবে সাধ্যমত,
তবু মাদ্রাসা বন্ধের আওয়াজটা চালিয়ে যেতে হবে|

Print Friendly, PDF & Email

Faysal Hossain Onik