Atheist in Bangladesh

অরলান্ডো শহরে সমকামী ক্লাবে হামলা চালালো ওমর মতিন

স্থানীয় সময় শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে অরলান্ডো শহরের পালস নামের এক সমকামী ক্লাবে হামলা চালান ওমর মতিন। প্রথমে গুলিবর্ষণ শুরু করলে ক্লাবের এক কর্মকর্তা তাঁকে প্রতিহতের চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে মতিন দৌড়ে ওই ক্লাবে ঢুকে পড়েন।
হামলার সময় নৈশক্লাবে অন্তত ৩২০ জন নাগরিক ছিলেন। তাঁদের মধ্যে কমপক্ষে ৫০ জনকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত করেছেন অরলান্ডো পুলিশের প্রধান জন মিনা। তবে হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে শঙ্কা করা হচ্ছে।

মতিনের হামলায় আহত হয়েছেন আরো ৫৭ জন। তাঁদের মধ্যে অনেকের অবস্থাই গুরুতর।

এ ঘটনায় ফ্লোরিডার অরলান্ডো নগরের মেয়র বাডি ডেয়ার রাজ্যটিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন।

অরলান্ডো পুলিশের প্রধান জন মিনা জানিয়েছেন, ওমর মতিন আফগানিস্তানের বংশোদ্ভূত। বহু লোককে হত্যার পর তিনি পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন।
দ্য ইন্ডিপেনডেন্টের খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে ন্যক্কারজনক গোলাগুলির ঘটনার হোতার কয়েকটি সেলফি প্রকাশিত হয়েছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম মাইস্পেসে। সে ছবিগুলোর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মতিনের সাবেক স্ত্রী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মতিনের সাবেক স্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে তাঁর বিয়ে হয়। ২০১১ সাল পর্যন্ত তিনি সংসার করেছেন। এরপর বিচ্ছেদ হয়। এ সময়ে মতিন তাঁকে শারীরিক নির্যাতন করেছেন।

ইন্ডিপেনডেন্টের খবরে উল্লেখ করা হয়, মতিন ফ্লোরিডার ফোর্ট পিয়ার্স শহরের একজন নিরাপত্তাকর্মী ছিলেন। তিনি একটি গাড়ি ভাড়া করে অরলান্ডোতে এসে হামলা চালিয়েছেন বলে ধারণা করছে পুলিশ।

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরোর (এফবিআই) ভাষ্য, হামলাকারী মতিন উগ্রপন্থায় সম্পৃক্ত থাকতে পারেন। তবে তাঁর (মতিন) বাবা যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম এনবিসিকে বলেছেন, ‘এটা (হামলা) ধর্মকেন্দ্রিক কোনো বিষয় নয়।’
নিজ সন্তানকে সমকামীদের প্রতি বিরূপ মনোভাবাপন্ন বলে আখ্যায়িত করেছেন মতিনের বাবা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মতিনের সাবেক স্ত্রী ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, ‘সে (মতিন) স্বাভাবিক ছিল না।’

মতিনের সাবেক স্ত্রী আরো বলেন, ‘সে আমাকে মারত। সে বাড়িতে এসেই আমাকে মারা শুরু করত। কাপড় ধোয়া হয়নি কিংবা এমন কোনো অজুহাতে মারধর করত।’

Athiest in Bangladesh